শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১১

Nunu Nunu 03

আজিজ।বারেক ফিরেছে দিন হয়ে গেল। আজিজ নিয়মিত অফিস করা শুরু করেছে। সকালে যায় আর সন্ধ্যায় ফেরে। আজিজ রাতের খাবার খেয়ে ছাদে গিয়েছিল একটু হাটাচলা করতে। কোলাহলময় ঢাকা শহরে এরই মধ্যে অনেকটা অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে আজিজ। ঘরে ঢুকতেই দেখে বারেক একগ্লাস দুধ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আজিজ কোন কথা না বলে একটি বই হাতে বিছানায় গা এলিয়ে শুয়ে পড়লো। বারেক হঠাৎ ঘরের দরজার সিটকিনীটি তুলে দিয়ে আজিজের পা জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করে দিল। আজিজ কিছু না বোঝার ভান করেওকে জিজ্ঞেস করে -’ আরে কি হয়েছে, পা ছাড়, আহ বল না কি হয়েছে, না বললে বুঝবো কিভাবে?”স্যার, আমাকে আপনি মাপ করে দেন। আর কোন দিন এই ভুল করুম না। বড় স্যার জানলে আমাকে গুলি করে মেরে ফেলবে। আমার চাকরীটাও চলে যাবে। স্যার আমাকে আপনি বাঁচান।আজিজ বুঝতে পারে সুমি ওকে বলে দিয়েছে। বারেক কে অনেক করে বোঝাতে চেষ্টা করে কোন তি করবে না তবুও বারেক নাছোড় বান্দা। সহজে বিশ্বাস করতে চায় না। আজিজ ওকে জোর করে তুলে পাশে বসিয়ে বলে ঠিক আছে একটা শর্তে আমি তোমাকে মাফ করতে পারি আমাকে সব ঘটনা খুলে বলতে হবে। কোন রকম লুকাতে পারবে না বা মিথ্যা কথা বলতে পারবে না। ঠিক আছে স্যার। আপনি যা বলবেন আমি তাই শুনবো। শুধু আমাকে আপনি বাঁচান।আমি একজন গ্রামের ছেলে। আমার দুলাভাই বড় স্যারের পরিচিত। দুলাভাইয়ের অনুরোধে বড় সাহেব আমাকে তার অর্ডালীর চাকুরী দিয়ে এই বাড়ীতে কাজ করার সুযোগ দেন। আমি মনোযোগ দিয়ে সব কাজ করি বড় স্যার আর মেমসাহেবকে খুশি করার জন্য। বেগম সাহেবের সাথে বড় সাহেবের তেমন বনিবনা নাই। মাঝে মাঝে খুব ঝগড়া হয়। তখন বেগম সাহেব সুমি আপাকে নিয়ে মায়ের বাড়ী চলে যায়। এক বৎসর আগে এমনি এক সময় বেগম সাহেব সুমি আপাকে নিয়ে তার বাবার বাড়ী চলে যায়। বাসায় শুধু আমি আর বড় সাহেব। বাবুর্চি রাতের খাবার খাইয়ে তার বাসায় চলে যায়। বড় সাহেব একা থাকে
তাই আমাকে বললো তুই আমার কাছে কাছেই থাকবি। রাতে দরকার হতে পারে। আমি আমার বিছানা নিয়া বারান্দায় শুয়ে থাকি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন